Ad Code

Ticker

6/recent/ticker-posts

আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই ২০২২

 “আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই” সকল ১৮ বছরের ছেলে মেয়েদের কথা এটি। যারা ১৭ বা ১৮ বছরের আইডি কার্ডের  জন্য আবেদন করেছেন। তাঁদের জন্য Nid card check Bangladesh এর সবচেয়ে সহজ উপায় আপনাদের সাথে শেয়ার করবো। 

আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই ২০২২

সহজেই মোবাইলের মাধ্যমে ভোটার আইডি চেক করতে পারবেন। ভয় পাওয়ার কোন কারন নেই। আমাদের দেখানো পদক্ষেপ গুলো অনুসরন করুন। Nid card check করতে যত প্রকার সমস্যা বা বাঁধা বিপত্তি আসে, সব একসাথে সমাধান করবো। ইনশাল্লাহ খুব সহজেই ভোটার আইডি কার্ড দেখবো কিভাবে? এই প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন।

আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই ২০২২

গুগলে ভোটার আইডি কার্ড চেক লিখে সার্চ করলে অনেক আর্টিকেল দেখা যায়। কিন্ত দুঃখের বিষয় হচ্চে সেখানে দেখানো পদ্ধতি গুলো পুরনো। সময়ের সাথে nid card check এর পদ্ধতিতে অনেক পরিবর্তন এসেছে। তাই বর্তমান সময়ে চেক পরিচয় পত্র ভোটার আইডি কার্ড সার্চ করে প্রাপ্ত সকল পদ্ধতি কাজে আসে না। 


কিন্ত চিন্তার কোন কারন নেই। আপনি যদি আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই বলছেন, তবে একদম সঠিক জায়গায় এসেছেন। নিচের দেওয়া ২০২২ সালের হালনাগাদ (Updated) কৃত পদ্ধতি অনুসরন করুন। Nid card হাতে পাওয়ার জন্য আপনাকে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে হবে। 


আপনি যখন আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই লিখে সার্চ করছেন। তখন ধরেই নেওয়া যায় আপনি ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করেছেন। 


যেখানে আপনার-


  • সুন্দর একটা ছবি তোলা হয়েছে

  • জন্ম নিবন্ধন এর তথ্য নেওয়া হয়েছে

  • চোখের স্ক্যান

  • ফিংগার প্রিন্ট (আঙ্গুলের ছাপ)

  • এবং সিগনেচার 


নেওয়া হয়েছে। আপনি যদি আবেদন না করে থাকেন তাহলে চিন্তার কোণ কারন নেই। কেননা আগামী বছর ১০ থেকে ১৮ বা তাঁর বেশি সকলেই ভোটার আইডি কার্ডের জন্য আবেদন করতে পারবেন (Source) ।

Nid card check Bangladesh

যদি আবেদন করার পর ভোটার আইডি কার্ড চেক করতে চাচ্ছেন । তাহলে আপনার ৩০ ভাগ কাজ এখনেই শেষ। আপনার কাছে একটা রিসিট বা আবেদন ফর্ম এর ছোট অংশ থাকার কথা। যেখানে থাকা ফরম নম্বর’টির প্রয়োজন হবে ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য। 

ফরম নম্বর আপনার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাইলে অবশ্যই লাগবে। চলুন দ্রুতই নম্বর দিয়ে মোবাইলে ভোটার আইডি চেক করে ফেলি। 


ভোটার আইডি কার্ড দেখবো কিভাবে

ভোটার আইডি কার্ড চেক বা দেখার জন্য আপনা প্রথমে এই (https://services.nidw.gov.bd/nid-pub/) লিংক এ যেতে হবে। সেখানে যাওয়ার পর রেজিস্টার করুন এবং আবেদন করুন দুটি বাটন দেখতে পারবেন। আপনাকে রেজিস্টার করুন এ ক্লিক দিতে হবে। ভোটার আইডি কার্ড দেখবো কিভাবে এই প্রশ্নের উত্তর নিচের ধাপ গুলোতে-


ভোটার আইডি কার্ড চেক ধাপ ১

রেজিস্টার বাটনে ক্লিক করলে আপনার সামনে ছবিতে দেখানো ফরমের মতো একটি ফরম উপস্থিত হবে।সেখানে প্রথমে আগের ফরম নম্বর সঠিক ভাবে দিতে হবে। তাঁর পরে জন্ম তারিখ দিতে হবে। মনে রাখবেন জন্ম তারিখ যেন জন্ম নিবন্ধন সাথে মিল থাকে। তাঁর পর ক্যাপচা ওয়ার্ড গুলো দেখে দেখে টাইপ করে সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন। 

ভোটার আইডি কার্ড চেক ধাপ ২ 

যদি আগের তথ্য গুলো সঠিক হয় তাহলে আপনার সামনে এইরকম বড় একটা ফর্ম আসবে। যেখানে আপনার বর্তমান এবং স্থায়ী ঠিকানা নির্বাচন করতে হবে। অর্থাৎ আপনার বিভাগ, জেলা এবং উপজেলা নির্বাচন করুন। চাইলে স্থায়ী আর বর্তমান একই ঠিকানা দিতে পারবেন। 

ভোটার আইডি কার্ড চেক ধাপ ৩

Nid card check bangladesh এর এই পর্যায়ে আপনাকে মোবাইল নাম্বার ভেরিফাই করতে হবে। ভোটার আইডি কার্ডের আবেদন বা ফরম পূরন করার সময় যে নাম্বার দিয়েছিলেন সেখানে একটা পিন পাঠানো হবে। চাইলে এখান থেকে নাম্বার পরিবর্তন করাও সম্ভব। পরিবর্তন করতে না চাইলে বার্তা পাঠান বাটনে ক্লিক করুন। আপনার মোবাইলে মেসেজ এর মাধ্যমে কোড পাঠানো হবে। সেই কোড এখানে দিয়ে কাজ সম্পন্ন করতে হবে। 

ভোটার আইডি চেহারা কার্ড চেক বা ভেরিফিকেশন

আপনার নাম্বার ভেরিফিকেশন শেষ হয়ে গেলে চেহারা ভেরিফাই করতে হবে । এই ধাপ সম্পন্ন হলেই আইডি কার্ড দেখতে পারবেন। Google Play Store থেকে NID Wallet নামে একটি App ডাউনলোড করতে হবে। 


ফেইস ভেরিফিকেশন আপনার কাছে ঝামেলা মনে হতে পারে। আমি নিজেও অনেক বার চেষ্টা করার পর, এই পদ্ধতিতে এ এক বারেই ভেরিফাই করতে সক্ষম হয়েছি। 


  • যদি আগের ধাপ গুলো কম্পিউটার দিয়ে করে থাকেন তাহলে তো মোবাইল এ NID Wallet  করলেই কাজ হয়ে যাবে। আর যদি মোবাইল দিয়ে করে থাকেন তাহলে অন্য একটি মোবাইল এ App টি ডাউনলোড করুন।

  • NID Wallet ডাউনলোড হয়ে গেলে সেটির ভিতরে প্রবেশ করুন। ওয়েবসাইট এ যে কোডটি ওপেন হয়েছে সেটি স্ক্যান করুন। 

  • এর পর আপনি আলোর সামনে গিয়ে সেলফির মতো ক্যামেরা সামনে যান, মোবাইল আপনার সোজা সামনে রাখবেন ছবিতে দেখানো পদ্ধতিতে। সামনে থেকে হয়ে গেলে ডান দিক এবং বাম দিকে ঘুরে যাবেন। NID Wallet এ ইন্সট্রাকশন দেখাবে সেটি অনুসরন করুন। 


ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড


ভেরিফিকেশন শেষ হয়ে গেলেই ডাউনলোড পেইজ এ নিয়ে যাবে আপনাকে। সেখানে গিয়ে আপনার ভোটাই আইডি কার্ড চাইলে দেখতে পারেন বা ডাউনলোড করতে পারেন। ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করার পর মোবাইল বা কম্পিউটারে সেভ করে রেখে দিবেন।


যদি সেভ করে না রাখেন তাতেও কোন সমস্যা নেই। কেননা এই উপায়ে যতবার ইচ্ছা ভোটার আইডি কার্ড ডাউনলোড করতে পারবেন। কিন্ত প্রত্যেক বার এই একই পদ্ধতি পুনরায় অনুসরন করতে হবে। আমার মনে হয় বার বার এই ঝামেলা করার থেকে একবার ডাউনলোড করে রেখে দিলেই হয়। 



এখন মোবাইলে ভোটার আইডি চেক করার প্রসেস প্রায় শেষ এর পথে। আপনার সামনে ইউজার নেম এবং পাসওয়ার্ড সেট করার অপশন আসবে। সেটআপ হয়ে গেলেই ভোটার আইডি কার্ড নিজেই ডাউনলোড করে নিতে পারবেন। 

শেষ কথা


এই ছিল আমার ভোটার আইডি কার্ড দেখতে চাই প্রশ্নের উত্তর। আশা করি এখন ভোটার আইডি কার্ড চেক করার জন্য কারোর পিছনে ভাগতে হবে না।  আপনার হাতের মোবাইলের মাধ্যমেই ভোটার আইডি চেক করতে পারবেন।

Post a Comment

0 Comments